কেন মুহাম্মদ সাঃ কে মানুষ আল্লাহর রাসূল বলে মানতে অস্বীকার করছে - Bangla SMS Point- বাংলা-SMS-পয়েন্ট

Latest

Monday, June 22, 2020

কেন মুহাম্মদ সাঃ কে মানুষ আল্লাহর রাসূল বলে মানতে অস্বীকার করছে

Why Do People Refuse To Accept Muhammad (pbuh) As The Messenger of God

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম 

এই পৃথিবীতে ইসলাম  এমন একটি ধর্ম যার তারিখের উপর সবথেকে বেশি কলম চালানো হয়েছে 

এবং মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম এমন একজন মানুষ ছিলেন জিনার প্রশংসা শুধুমাত্র মুসলমানরাই নয় অমুসলিমরাও তিনার প্রশংসা করতে বাধ্য হয়েছেন 

আর এর প্রমাণ দিয়েছেন Robert Briffault - এর The Making of Humanity মতো বই, মাইকেল এইচ হার্ট এর The 100 এর মতো বই  যে বইয়ে পৃথিবীর 100 জন সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষের তালিকায় তিনাকে স্থান দেওয়া হয়েছে নাম্বার 1 এর 

Why Do People Refuse To Accept Muhammad (pbuh) As The Messenger of God
Why Do People Refuse To Accept Muhammad (pbuh) As The Messenger of God
কিন্তু এতকিছুর পরেওওই নাস্তিকের দল মোহাম্মদ সাল্লালাহ সালামের নবুয়াতের উপর অবিশ্বাস স্থাপন করেনবুয়াত কে মেনে নেয় নাতাদের মতামত অনুযায়ী এটি একটি মনগড়া চিন্তাভাবনা  মৌখিক কথাবার্তা  এর সম্পর্ক কোনভাবেই কোন খোদা আল্লাহতালা সাথে সম্পর্কিত না 

বড় বড় প্রফেসর সায়েন্টিস্টরা মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম কে পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ মানব বলে মেনে তো নিচ্ছেওয়ার্ল্ড মোস্ট ইনফ্লুয়েন্সিয়াল পার্সেন্ট বলে মানতে অস্বীকার করছে না  কিন্তু তারা মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু সাল্লামের নবুওয়াত মানতে অস্বীকার করছে  

এই নবোয়াত কে অস্বীকার করার পেছনে তাদের কাছে কি সাইন্টিফিক প্রফ রয়েছেবা কি রিসার্চের ডাটা রয়েছে আজকের এই আর্টিকেলটিতে এই কেস টির স্টাডি করতে যাচ্ছি 

আসসালামুআলাইকুম বন্ধুরাআমি মোঃ আলমগীর আপনাদের সবাইকে নতুন একটি ইসলামিক রিসার্চ আর্টিকলে স্বাগত জানাচ্ছি। 
তো চলুন শুরু করি ….

⇛পৃথিবীর মহান ব্যক্তিত্বসম্পন্ন মানুষদের একাকী সময় কাটানো ?

ডিয়ার ফ্রেন্ডসপৃথিবী তারিখে এমন এমন সময় পার হয়েছে যে সময় পৃথিবীর মহান ব্যক্তিত্বসম্পন্ন মানুষেরা  পৃথিবীর রঙ্গমঞ্চে ভরা জনসমুদ্র ছেড়ে কোন জঙ্গলে বা কোন পাহাড়ের গুহায় কত কত মাস বছর একাকীত্ব সময় কাটিয়েছেন  

কিন্তু যখন তারা ফিরে আসেন তখন তাদের কাছে এমন কিছু ইনফরমেশন ছিল যেগুলোকে পৃথিবীর শিক্ষিত সমাজের মানুষেরা অস্বীকার করে  পরে ওই সমস্ত ইনফরমেশনই একটি রিলিজিয়ান বা ধর্মে পরিণত হয় 

আপনি পৃথিবীর যে কোন ধর্ম উঠিয়ে দেখুন সেটা হিন্দু হোক বা ইসলাম বা  জৈন ধর্ম অথবা বানীইসরাইল এর আম্বিয়া হোক দুনিয়ার যেকোন বড় বড় ধর্মের শুরু হয়েছে কোন মহান ব্যক্তির জঙ্গলে বা পাহাড়ের গুহায় একাকী সময় কাটানোর মাধ্যমে 

এইবার কথা হচ্ছেযে জঙ্গলে বা কোন পাহাড়ের গুহায় অনেক মাস আর বছর একাকীত্ব সময় কাটানোর মাধ্যমে তারা কি কোন খোদা বা আল্লাহতালার সাথে কোন প্রকার সম্পর্ক স্থাপনে সার্থক হয় 

নাকি একাকী সময় কাটানোর ফলে তাদের ব্রেনের মধ্যে কোনো এক্সট্রা অ্যাক্টিভিটি হয়যার ফলস্বরূপ তারা এই সমস্ত কথা বার্তা বলে  আর যেটা আমরা বেশিরভাগ লক্ষ্য করে থাকি কোন মানুষ আইসোলেশন থেকে বেরিয়ে আসলে 

এখানে আর একটা ইম্পরট্যান্ট কথা হচ্ছে যদি আমরা কোন মানুষকে কোন অন্য গ্রহে পাঠিয়ে দিই সেওকি সেই গ্রহে একাকী সময় কাটানোর মাধ্যমে কোন খোদা আল্লাহ তালার সাথে সম্পর্ক স্থাপনে সার্থক হবেসেও কি নতুন কোন কিছু প্রচার করা শুরু করবে  

একচুয়ালি একাকী সময় কাটানোর মাধ্যমে তাদের সাথে এমন কি হয়বা তারা এমন কি দেখতে পানযেটা কোন ঘরে বসে থাকা মানুষ বা লোকজনের সাথে মেলামেশা করা মানুষের উপর এপ্লাই হয় না 
একাকী সময় কাটানোর মাধ্যমে তাদের সাথে কিছুতো আলাদা হয়

চলুন আমরা Deeply বোঝার চেষ্টা করি 

আজকে এই লিখাটি শুধু আমার হবে বাকি যে সমস্ত ডাটা আমি আপনাদের সামনে উপস্থাপন করতে যাচ্ছি সেগুলো সম্পূর্ণ অমুসলিমদের রিচার্জকৃত ডাটা  অনেক অমুসলিম সাইন্টিস্ট প্রফেসররা  টপিক এর উপর অনেক প্রকার এক্সপেরিমেন্ট করেছেনতার মধ্যে দুটি এক্সপ্রেমেন্ট আপনাদের সামনে তুলে ধরছি 

⇛ Michel Siffre এর কেস স্টাডি:-

Michel Siffre তিনি প্রথম রিসার্চার ছিলেন যে কিনা আইসোলেশন এ যাওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন 
তো আইসোলেশন টা কি একটু বলে দেই আইসোলেশন এমন একটি অন্তরঙ্গ বা বিচ্ছেদ বা একাকীত্ব যেখানে অনেক মাস পর্যন্ত আপনার ব্রেইনে কোন প্রকার ডাটা পৌঁছাতে দেওয়া হবে নাকোনও মানুষের আওয়াজ বা কোন অ্যাক্টিভিটি কোন কিছুই পৌঁছাতে দেওয়া হবে না  শুধু আপনি থাকবেন এবং একা থাকবেন 

এই সময়ই ব্রেন কোন স্টেজে কাজ করে বা কি অনুভব করে এইটা জানার জন্য 1972 সালে মাইকেল Siffre 180 দিনমানে ছয় মাস পর্যন্ত টেক্সাসের একটি গর্তে থাকার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন 

তো সেই গর্তটি 100 ফিট নিচের দিকে যেত  এইবার নাসার সিকিউরিটি টিম এর চারপাশে খুব শক্তভাবে সিকিউরিটির ব্যবস্থা করে যেন কোন জীব জন্তু সেই গর্তে না যেতে পারে  এবং তার সামনে না যে  তার খাবার পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়  তার সাথে সাথে গর্তের শেষ কোনায় একটি সিডি প্লেয়ার এর সাথে কিছু বই রেখে দেওয়া হয় 

এইবার মাইকেল Siffre মিশন আইসোলেশন শুরু হয়ে যায়   24 ঘন্টা পর তিনি একটি আতঙ্কের মুখোমুখি হন এক সপ্তাহ পর বাচ্চাদের মত বসে বসে কাঁদতে শুরু করে দেন তাকে এমন কিছু জ্বালাতন করা শুরু করে দেয় যার সাথে বাস্তবের কোন মিল ছিল না  

মিশনের দুই সপ্তাহ পর মাইকেল অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং জোরে জোরে চিৎকার শুরু করে দেয় এসব তারার কন্ট্রোলে ছিল না চার সপ্তাহ পর মাইকেল কিছু অদ্ভুত আওয়াজ শুনতে পাই এবং কিছু লোককে গর্তের মধ্যে মধ্যে দেখতে পাই 

যেখানে গর্তের বাইরে টাইড সিকিউরিটির বসানো ছিল গর্তের ভিতরে ক্যামেরা লাগানো ছিল তার পরেও সে সমস্ত আওয়াজ এবং লোকজনকে শুধুমাত্র মাইকেলি দেখতে পায়  মিশনের সাত সপ্তাহ পর মাইকেল সাহেবের মেমোরি খারাপ হতে শুরু করে  

কোন কোন সময় সে তার নামটা ভুলে যেত এবার ছয় মাস পর যখন মাইকেলকে গর্ত থেকে বের করা হলো তখন তার মেন্টালি হালাত এত ডিস্টার্ব হয়ে পরেছিল যে সে বসে বসে অনেক সময় ভয় পেতে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের অদ্ভুত অদ্ভুত আওয়াজ শুনতে পাই হঠাৎ করে দৌড়াতে শুরু করে  

এইবার যখন তার ব্রেইন কে স্টাডি করা হল তখন অনেক কিছু নতুন নতুন জিনিস পাওয়া গেল 

⇛ Adam Bloom এর কেস স্টাডি:-

এই টপিকের উপর দ্বিতীয় এক্সপেরিমেন্ট করে বিবিসি এর টিমএই এক্সপেরিমেন্টে এবার  সিলেক্ট করা হয় 6 জনকে তার মধ্যে একজন ছিল কমেডিয়ান Adam Bloomএই মিশন অনুযায়ী Adam Bloom কে একটি নিউক্লিয়ার বাঙ্কার এর ভিতর 48 ঘন্টা সময় কাটাতে হতো এবং এই 48 ঘন্টায় মানুষের আওয়াজ তো দূরের কথা বিন্দু পরিমাণ আলোর ব্যবস্থা ছিল না

এবার প্রথম কয়েক ঘন্টা অ্যাডাম Bloom খুব হাসি খুশিতে কাটিয়ে দেয়কিন্তু কিছু টাইম পর তার মুড অফ হয়ে যায়এরপর 36 ঘন্টা পর সে কিছু অদ্ভুত ধরনের আলো দেখতে শুরু করেকখনো তার পায়ের নিচ থেকে মাটি সরতে শুরু করে দেয় কখনও বা অদ্ভুত আওয়াজ শুনতে পায় আবার কখনো কখনো সে মূর্তি পর্যন্ত দেখতে পেয়েছিল 

48 ঘন্টার পর সেও মেন্টালি ভাবে ডিস্টার্ব হয়ে পড়ে এক্সপেরিমেন্টের পরেও সে অনেকবার ঘন্টার আওয়াজ শুনতে পাই এবং যখন এডামের মেন্টাল স্টাডি করা হলো সেখানেও সেই একই রেজাল্ট সামনে আসলো যেটা মাইকেল Siffre এর কেসে ঘটেছিল 

তো বন্ধুরাএটা কি ছিলমৃত্যুর মতো একাকিত্বের দুটো এক্সপেরিমেন্ট আমি আপনাদের সামনে পেশ করলামদুটো কেসেই দুজনই তারা এমন কিছু দেখে বা শুনে যেটা তাদের নিজেদেরই ব্রেনে তৈরিকৃত অ্যাক্টিভিটি ছিল 

তো এবার এই সিচুয়েশন create  কিভাবে হলো  কিভাবে তাদের অ্যাক্টিভিটিগুলির আউটপুট সত্যি সত্যি তারা তাদের চোখের সামনে দেখতে পেল এবং শুনতে পেল 

⇛ নিউরো গ্রুপ ( নিউরো প্লাস্টিসিটি ) ব্রেনকে সিচুয়েশন অনুযায়ী হ্যান্ডেল করার জন্য প্রস্তুত করে :

নিউরো প্লাস্টিসিটি ব্রেনের মধ্যে নিউরোনের একটি গ্রুপবাইরে থেকে জে ডাটা ব্রেনের ভিতরে প্রবেশ করে নিউরো প্লাস্টিসিটি সেই ডাটা অনুযায়ী ব্রেনকে সিচুয়েশন কে হ্যান্ডেল করার জন্য প্রস্তুত করে একটা উদাহরণ দিলে ভালো হয়

ধরুনআমরা কোন কিছুর বিরুদ্ধে প্রটেস্ট করার জন্য রাস্তায় বেরিয়ে পড়লাম এবার পুলিশ যদি আমাদের সামনে চলে আসে তাহলে আমাদের অবস্থা শেষ আমরা খুব তাড়াতাড়ি ভয় পেয়ে যাই এবং সেখান থেকে পালিয়ে যায় 

কিন্তু অপরপক্ষেকাশ্মীর বা ফিলিস্তিনের লোকেরা পুলিশের গুলিবর্ষণের সামনেও দাঁড়িয়ে থাকে  এবার এই দুই গ্রুপের দুই ধরনের ডিফরেন্ট মেন্টাল স্টেট কে সিচুয়েশন অনুযায়ী এই নিউরো প্লাস্টিসিটি  কিন্তু তৈরি করেছে 

এর মানে মানুষকে তার মহল অনুযায়ী প্রস্তুত করা তার সিচুয়েশন অনুযায়ী তাকে অ্যাডজাস্ট করা  কাজটা ব্রেনের নিউরো প্লাস্টিসিটি করে থাকে 

কিন্তু এবার কথা হচ্ছে যদি কোনো প্রকার কোনো সিচুয়েশন ক্রিয়েট না হয়ে থাকে বা কোনো অ্যাক্টিভিটি না হয়ে থাকে 10 ঘণ্টা আগে যে সময়টা ছিল এখনো সেটাই রয়েছেপাঁচ সপ্তাহ আগে যেটা ছিল 5 সপ্তাহ পরেও সেই একই অবস্থা 

এর মানে আমি আপনাকে বোঝাতে চাইছি যদি কোন প্রকার ডেটার আদান-প্রদান না হয়ে থাকে তাহলে এই নিউরো প্লাস্টিসিটি নিউরনগুলো ক্লিন হতে শুরু করে  

যেখানে God state of Brain মানে খেয়াল তৈরি হয় যেখানে মানুষ নিজেকে কন্ট্রোল করে যেখানে মানুষ কোন ধরনের ফায়সালা নেইব্রেনের সেই ইম্পর্টেন্ট জায়গাটা আউট অফ কন্ট্রোল হতে শুরু করে 

যার ফলে এমন একটি মেমোরি জেনারেট হতে শুরু করে যার সাথে বাস্তবের কোন মিল থাকেনা  এর ফলস্বরূপ মানুষ আশ্চর্য ধরনের লাইটনেস বা ভাস্কর্য দেখতে পায় অদ্ভুত ধরনের আওয়াজ শুনতে পাই এটা শুধুমাত্র একটা মেন্টালি প্রেসার হয়ে থাকে এর সাথে কোন জ্বীন-ভুতের সম্পর্ক নেই 

তো এক কথায় বলা যায় মাইকেল আর অ্যাডাম যেটা দেখেছিল এটা শুধুমাত্র তাদের ব্রেনের কার্যকলাপ ছিল এবং শুধুমাত্র আইসোলেশন  থাকার মাধ্যমে তাদের ব্রেন  ডাটা  ক্রিয়েট করেছিল 

⇛ ব্রেনের নিজস্ব জেনারেট কৃত ডাটা :-

এবার এই রিসার্চ অনুযায়ী যদি আমরা দেখি তাহলে জঙ্গলে  পাহাড়ের গুহায় একাকী থাকা সমস্ত মহান ব্যক্তিদের ধর্ম তাদের ব্রেনের জেনারেল কৃত ডাটা ছিল আর এর সাথে খোদাতালার কোন সম্পর্ক নেই এবং এই জায়গায় এসেই সমস্ত সাইন্টিস্ট এবং প্রফেসররা দাঁড়িয়ে যায় 

তো এখানে আমি সেই সমস্ত নাস্তিকদের উদ্দেশ্যে কিছু কথা বলতে চাই আপনারা মন দিয়ে পড়বেন 

⇛ এটা কিভাবে সম্ভব ?????

একজন সিম্পল সাধারণ মানুষ যার কোন টিচার ছিল না,  মক্কা থেকে দূরে একটা গুহার ভিতরে সে তার একাকী সময় কাটাচ্ছিল এবং যখন সে গুহা থেকে বেরিয়ে এলো তখন Robart Brefoult কে কেন লিখতে হল যে মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পুরো মানবজাতিকে জীবিত করে তুলল 


ঠিক আছে মিরাজের ঘটনা কে না মানবেন না মানুন চাঁদকে 2 টুকরো করা হয়েছিল না মানবেন না মানুন পাথর হাতের মধ্যে কথা বলল সেটাও না মানবে না মানুনকিন্তু এটা কিভাবে সম্ভব যে একজন আইসোলেশন এর মধ্যে থেকে বেরিয়ে এসে গোটা বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ সমাজনীতির রাষ্ট্রবাদ এর বিশাল সৈন্যবাহিনীর লিডার হয়ে বেরিয়ে আসলো  

যখন সে বেরিয়ে এলো তখন গোটা পৃথিবী রহমতে ভরে গেল নারীরা তাদের অধিকার পেল একজন শ্রমিক তার ন্যায্য পারিশ্রমিক একজন বিক্রি হয়ে যাওয়া সার্ভেন্ট তার মালিকের কাছ থেকে আজাদী পেল 

এই কথাগুলি বলার মানে হল , যখন মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম গুহার ভিতরে একাকী সময় কাটাচ্ছিলেন তখন অবশ্যই কোন পাওয়ার বা শক্তির সাথে সম্পর্ক স্থাপন সম্ভব হয়েছিল যে শক্তি মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম কে পড়তে শেখালেন

যেই পাওয়ার কোরআন মাজিদে বলল আমি সব ধরনের ফল কে জোড়ায় সৃষ্টি করেছি আজ এগ্রিকালচার সায়েন্স আমাদের বলছে সমস্ত গাছপালা নারী  পুরুষ হয়ে থাকে তাদের মধ্যে জিনের স্ট্রাকচার অবস্থিত 

কুরআন বলছে জমিন  আসমান একটা বিন্দু ছিল তারপরে ব্লাস্ট হয়ে পুরো কায়নাতের সৃষ্টি হল তারপর বলছে কায়নাত চারিদিকে ধোঁয়ার মতো ছড়িয়ে ছিল তারপর গ্রহ তারা নক্ষত্র সৃষ্টি হল এরপরে কোরআন বলছে পৃথিবীর আকৃতি হচ্ছে গোলাকার এরপর বলছে এই বিশ্বব্রহ্মাণ্ডে গুলারে Spending হতে আছে 

আমি সেই সমস্ত আইসোলেশন  বিশ্বাসী প্রফেসর এবং সাইন্টিস্ট এর উদ্দেশ্যে বলতে চাই ঠিক আছে FOR SAKE OF আর্গুমেন্ট মেনে নিলাম যে মুহাম্মদ সাল্লাহু সাল্লাম এর নবুয়াত তিনার নিজস্ব ধারণা হতে পারে 

কিন্তু এটা কি করে হতে পারে যে একজন মানুষ যার কোন টিচার নেই যার কোন এডুকেশনাল ব্যাকগ্রাউন্ড নেই সে আইসোলেশন থেকে বেরিয়ে এসে চৌদ্দশ বছর পরে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার খরচা করা সায়েন্টিফিক রিসার্চ বা এক্সপেরিমেন্ট এর মাধ্যমে আবিষ্কার হওয়া তথ্যগুলো কোন প্রকার রিসার্চ বা ইকুইপমেন্ট ছাড়াই চৌদ্দশ বছর আগেই বলে দিল 

সে আইসোলেশন থেকে বেরিয়ে এলো এবং তার বানানো কথা দিয়ে বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ বই আল-কোরআন লেখা হলো সে আইসোলেশন থেকে বেরিয়ে আসলো আর লোকজন তাদের বুকের সিনা  হাজির করে দিল 

মাইকেল আর এডাম ব্লুম তো পরে অনেক সাল পর্যন্ত এমন কোনো কাজের কাবিলি ছিলনা যে মানুষ সেটার প্রশংসা করে 

কিন্তু আপনারাই তো মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম কে বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষের তালিকায় নাম্বার ওয়ানে রেখেছেন আপনারা তো বলছেন মানুষ আইসোলেশন সেই সমস্ত জিনিস দেখে বা শুনে যেটা তার ব্রেনে আগে থেকে মজুদ থাকে 

তো বলুন মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম কোন ল্যাবরেটরীতে গেছিল আপনারা তার জন্য কোন এগ্রিকালচার ল্যাবরেটরী বানিয়ে রেখেছিলেন  

তিনি  সমস্ত রাজ খুলে দিয়েছেন যেগুলো আজকে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার খরচা করার পর আবিষ্কার হচ্ছে তার মানে কিছু তো আলাদা ছিল কিছু তো ইউনিক ছিল 

এবার 100 কথার এক কথা দেখুন আইসোলেশন থেকে মানুষ বেরিয়ে আসলে ব্রেনের সন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে এবং অনেক মানুষের পাগল হয়ে যায় এটা সত্য কিন্তু আপনি কোন ধর্মের ব্যাপারে  ধরনের রায় দিতে পারেন না,

কারণ পৃথিবীতে রহমান  শয়তান দুই ধরনের পাওয়ার এক্সিট করে আর যখন কারো উপর এই পাওয়ার কাজ করে সেখানে আইসোলেশন এর গল্প খতম হয়ে যায় সেখানে ব্রেন আর খালি থাকে না তার মধ্যে এক ধরনের খাস ডাটা স্টোর হতে থাকে 
Writer - Md Alamgir

'আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক'

প্রবন্ধের লেখা অপরিবর্তন রেখে এবং উৎস উল্লেখ্য করে আপনি Facebook, Twitter, ব্লগআপনার বন্ধুদের Email Address সহ অন্য Social Networking ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে পারেনমানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন। "কেউ হেদায়েতের দিকে আহবান করলে যতজন তার অনুসরণ করবে প্রত্যেকের সমান সওয়াবের অধিকারী সে হবেতবে যারা অনুসরণ করেছে তাদের সওয়াবে কোন কমতি হবেনা" [সহীহ্ মুসলিম২৬৭৪]

No comments:

Post a Comment